সাড়াদেশে ১০০টি শিল্পাঞ্চল গড়ে তোলা হবে : প্রধানমন্ত্রী

by sylhetmedia.com

এসবিএন ডেস্ক: দেশজুড়ে আরও ১০০টি শিল্পাঞ্চল গড়ে তোলা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

১০টি অর্থনৈতিক অঞ্চলের উদ্বোধন উপলক্ষে রোববার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সারাদেশে আমরা ১০০ অর্থনৈতিক শিল্পাঞ্চল গড়ে তুলবো। সরকারের একক উদ্যোগের পাশাপাশি সরকারী-বেসরকারী যৌথ উদ্যোগ অথবা অন্যদেশের সঙ্গে জিটুজি (গভর্নমেন্ট টু গভর্নমেন্ট) পর্যায়ে যৌথ উদ্যোগের মাধ্যমে, যেখানে যেভাবে দরকার, সেখানে এগুলো গড়ে তোলা হবে।’

তিনি বলেন, এসব শিল্পাঞ্চল গড়ে তোলার মধ্য দিয়ে মৎস, সবজি, ফল, আমিষ উৎপাদন ও প্রক্রিয়াজাতকরণে বাংলাদেশের সুযোগ আরও বাড়বে। এর মাধ্যমে দেশীয় চাহিদা পূরণের পাশাপাশি বিশ্ববাজারে সেগুলো রফতানি করা যাবে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘শিল্প বিপ্লব ঘটাতে চাইলে দেশের মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বাড়াতে হবে। আর ক্রয় ক্ষমতা বাড়াতে হলে মাথাপিছু আয় বাড়াতে হবে। মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বাড়লে দেশের ভেতরেই বিশাল বাজার তৈরি হবে। সেক্ষেত্রে শুধু রফতানি আয়ের দিকেই তাকিয়ে থাকতে হবে না।’

তিনি বলেন, ‘মানুষের অর্থনৈতিক উন্নতি হচ্ছে এবং মাথাপিছু আয় বাড়ছে। কিন্তু আমরা এখানেই আটকে থাকতে চাই না। আমরা চাই মানুষের মাথা পিছু আয় আরো বাড়ুক, যাতে ২০২১ সালের মধ্যে আমরা মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হতে পারি।’

বাংলাদেশের বিশাল সমুদ্রসীমার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই সমুদ্রসীমা আমাদের নানা সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। অর্থনৈতিক উন্নয়নে একে কাজে লাগাতে হবে।’

এছাড়া গভীর সমুদ্র বন্দর করার জন্য উদ্যোক্তা খোঁজা হচ্ছে বলেও এ সময় জানান প্রধানমন্ত্রী।

শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার সময় পরিবেশ সম্পর্কে সচেতন থাকার জন্য মালিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘শিল্প গড়ে তোলার সময় যে জিনিসটা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন তা হচ্ছে পরিবেশ যাতে নষ্ট না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা।’

তিনি বলেন, ‘শিল্প কারখানার বর্জ্য যাতে নদীতে না যায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। যেজন্য যা যা করা দরকার করতে হবে।’

নতুন চালু করা অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে শিল্প মালিকরা যাতে ভালোভাবে শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন ও পরিচালনা করতে পারে সেজন্য সবার সহযোগিতাও কামনা করেন প্রধানমন্ত্রী।

রোববার যে ১০টি অর্থনৈতিক অঞ্চলের উদ্বোধন করা হয়েছে সেগুলো হলো— চট্টগ্রামের মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চল, কক্সবাজারের টেকনাফ এলাকায় সাবরাং ট্যুরিজম ইজেড, মৌলভীবাজারের শেরপুরে শ্রীহট্ট অর্থনৈতিক অঞ্চল, বাগেরহাটের মংলা অঞ্চলের কামাডাংলা এলাকায় মংলা অর্থনৈতিক অঞ্চল, নরসিংদীর পলাশে কাজীরচর এলাকায় এ কে খান অর্থনৈতিক অঞ্চল, মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার বাউশিয়া এলাকায় আবদুল মোনেম অর্থনৈতিক অঞ্চল, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ এলাকায় মেঘনা ইকোনমিক জোন, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁর ছোট শিলামাণ্ডী এলাকায় মেঘনা ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইকোনমিক জোন, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ বড়তিলক সোনাময়ী এলাকায় আমান ইকোনমিক জোন, গাজীপুরের কোচাকুড়ি এলাকায় বে ইকোনমিক জোন।

Related Posts



cheap mlb jerseyscheap nfl jerseyscheap mlb jerseyscheap nhl jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseyscheap jerseys